কিছুদিন মাত্র গত হইয়াছে মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল প্রকাশের। সিংহ ভাগ শিক্ষার্থীই তাহাদের জীবনে প্রথমবারের মতো এত বৃহৎ আকৃতির কোন পরীক্ষাতে অবতীর্ন হইয়াছিল। দীর্ঘ দশ বছরের সাধনার ফসল তাহারা অবশেষে পাইয়াছে। অনেকেই হয়ত কাঙ্খিত ফল পাইয়া আনন্দে আত্মহারা, কেহ হয়তো কাঙ্খিত ফল না পাইয়া দুঃখে বাক্যহারা আবার কেহবা অকৃতকার্য হইয়া গৃহ হইতে বহিষ্কৃত হইয়া সর্বহারা। বর্তমানে এই তিনটি দল প্রতীয়মান হইলেও আশা প্রকাশ করিতেছি সেই দিন আর বেশী দূরে নাই যখন শুধুমাত্র দুইটি দলই টিকিয়া থাকিবে। কোন দুইটি? প্রথম এবং শেষ দুইটি! পাঠক বোধকরি এতক্ষনে ভ্রু কুঞ্চিত করিয়া ভাবিতেছেন, এই পাগলটি কি প্রলাপ বকিতেছে! তাহলে পাঠকদিগকে আমার অনুরোধ, একটু ধৈর্য ধারন করিয়া আমার রচনাটি পড়িয়া সমাপ্ত করিলে আশা করিতেছি আপনারাও আমার সহিত একমত হইবেন।

বর্তমান সরকার যখন ক্ষমতার আরোহন করার লক্ষ্যে নির্বাচনে অবতীর্ন হইয়াছিলেন তখন তাহারা নির্বাচনী ইশতেহারে উল্লেখ করিয়াছিলেন যে, বাংলাদেশকে; ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপে গড়িয়া তুলিবেন। বর্তমান যুগটাই হইতেছে কম্পিউটার তথা গণনাযন্ত্রের যুগ। এই যুগে উক্ত যন্ত্রটি ছাড়া বাঁচিয়া থাকা প্রায় অসম্ভব হইয়া পড়িয়াছে। হাটে-ঘাটে, গ্রামে-গঞ্জে, শহর-বন্দরে সকল স্থানে উক্ত যন্ত্রটির দৌড়াত্ম। যোগাযোগ হইতে শুরু করিয়া বিনোদন সকল ক্ষেত্রে আমরা এই যন্ত্রটির উপর পূর্ণমাত্রায় নির্ভরশীল হইয়া পড়িয়াছি। পরিস্থিতি এমন হইয়া গিয়াছে যে, পূর্বকালের বিভিন্ন সময়কে যেমন বিভিন্ন নামে আখ্যায়িত করা হইতো (যথা প্রাগৈতিহাসিক যুগ, অন্ধকার যুগ, মধ্যযুগ, আধুনিক যুগ) তেমনি করিয়া বর্তমান কালের নাম হইয়া গিয়াছে “ডিজিটাল যুগ”। এই ডিজিটাল যুগের বাসিন্দা হইয়া আমদিগের দেশও ডিজিটাল হইয়া যাইবে এবং পৃথিবীকে সম্মুখপানে আগাইয়া লইয়া যাইতে সহায়তা করিবে ইহাই তো হইবে সাধারন জনগনের কামনা। এতদ কারনে সংসদ নির্বাচনের সময় ইশতেহারের উক্ত আশ্বাস এক বৃহৎ ভূমিকা পালন করিবে তাহা বলাই বাহুল্য। হইয়াছেও তাহাই। জনগন তাহাদের মঙ্গল কিসে হয় তাহা খুবই ভালো বুঝিতে পারে সর্বকালেই।

নতুন সরকার ক্ষমতা হাতে লওয়ার পর সাধারন জনগন ভাবিয়াছিল এইবার হয়তো ঘরে ঘরে এই আধুনিক গণনাযন্ত্রটি পৌছাইয়া যাইবে। আকাশে-বাতাসে ডিজিটাল বাংলাদেশের সুবাতাস বইবে। কেহ কেহ হয়তো ভাবিয়াছেলেন দেশের নাম পরিবর্তন করিয়া “গণপ্রজাতন্ত্রী ডিজিটাল বাংলাদেশ” রাখা হইবে। কিন্তু জনগন অত্যন্ত হতাশ হইয়া দেখিতেছিল যে সরকার এইরূপ কোন পদক্ষেপই গ্রহন করিতেছে না। তথাপি দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, নিরাপত্তা ব্যবস্থা, বিদ্যুত সমস্যা লইয়া জনগন যারপরনাই ত্যাক্ত-বিরক্ত হইয়া উঠিয়াছিল। কিন্তু সরকার তাহাদের পরিকল্পনা যে কতটা সুচিন্তিত ভাবে করিয়াছে তাহা সাধারন জনগন অনুধাবন করিতে পারঙ্গম হয় নাই। তাহার কারনেই এই সকল অসুহিষ্ণতা তৈয়ারি হইয়াছে। কিন্তু সম্প্রতি সরকার মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল প্রকাশ করিয়া বুঝাইয়া দিয়াছে যে তাহারা জনগনকে মিথ্যা আশ্বাস দেন নাই। পাঠক হয়তো ভাবিতেছেন, ইহা কিরূপ কথা হইলো। মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলের সহিত ডিজিটাল বাংলাদেশের কি সম্পর্ক হইতে পারে? আছে, সম্পর্ক অবশ্যই আছে।

আপনারা যাহারা ডিজিটাল ব্যবস্থাটির সম্পর্কে কিঞ্চিত অবগত আছেন, তাহারা হয়তো জানিয়া থাকিবেন যে ডিজিটাল ব্যবস্থায় ১ এবং ০ ব্যতিত অন্য কিছু নাই। ব্যপারটা আপনাদের নিকট আজব ঠেকিলেও ইহাই সত্য। ধরা যাক আপনি ইংরিজী ভাষায় লিখিতে চাহিতেছেন ‘A’ তাহা হইলে ডিজিটাল মাধ্যমে তাহা ১০০০০০১ রূপে প্রতিস্থাপিত হইয়া যাইবে এবং গণনাযন্ত্র তাহা সেই রূপেই হিসাব করিবে। ইহাই ডিজিটাল ব্যবস্থার মূল তত্ব এবং ইহার উপরই দাড়াইয়া আছে বর্তমান যুগ। সরকার এই ব্যবস্থাটিকে এখন চাহিতেছেন সকল স্থানে ছড়াইয়া দিতে। সে লক্ষ্যে তাহারা অনেকদূর অগ্রসরও হইয়া গিয়াছেন। মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলই সে কথা বলিয়া দেয়। বর্তমানে দেশে যেভাবে পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয় সেই নিয়মে সর্বোচ্চ ফলাফল হইতেছে জিপিএ ৫। স্বভাবতই সর্বোচ্চ ফলাফল অর্জন করাটা দুষ্কর হইবারই কথা, কিন্তু যখন প্রায় ৯ লক্ষ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৮২,৯৬১ জন তা অর্জন করিয়া ফেলে তখন কিঞ্চিত অবাক হইতেই হয়। ইহা দেখিয়া আমিও অবাক হইয়াছিলাম। কিন্তু ক্ষনকাল এই বিষয় লইয়া ভাবিবার পরেই আমি বুঝিতে পারিলাম সরকার নিশ্চয়ই এক যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত গ্রহন করিয়াছে। যেহেতু একজন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় কৃতকার্য হইয়াছে ইহার চেয়ে একজন শিক্ষার্থী সর্বোচ্চ ফলাফল অর্জন করিয়াছে ইহা শুনিতে অধিকতর উত্তম লাগে তাই সরকার নিশ্চয়ই সিদ্ধান্ত লইয়াছে যাহারা কৃতকার্য হইবে তাহাদের সকলকে সর্বোচ্চ ফলাফল প্রদান করা হইবে। অন্য সকলকে অকৃতকার্য করা হইবে। শিক্ষার্থীরা যতদিন না সর্বোচ্চ ফলাফল অর্জনে সক্ষম হইবে ততদিন পর্যন্ত তাহাদের কৃতকার্য হইবার কোন যোগ্যতাই নাই। তাহা হইলে দেখা যাইতেছে যে পরীক্ষার ফলাফলও ১ এবং ০ এই রূপ হইয়া গিয়াছে। আর তাহাই যদি হইয়া থাকে তাহা হইলে সরকারকে অবশ্যই সাধুবাদ জানাইতে হইবে, কেননা শিক্ষিত মানুষ ব্যতিত ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়া কখনোই সম্ভব হইবে না। এখন যদি সেই শিক্ষিত হইবার প্রথম সোপানটাই ডিজিটাল হইয়া যায়, তাহা হইলে তো শিক্ষার্থীগণ প্রথম হইতেই ডিজিটাল ব্যবস্থা কি তাহা বুঝিয়া যাইবে। আরো কয়েক সোপান আরোহন করিবার পর তাহারাই সম্পূর্নরূপে ডিজিটাল হইয়া যাইবে। যখন মানুষ সকলই ডিজিটাল; তখন বাংলাদেশ ডিজিটাল না হইয়া যাইবে কোথায়।

আমি তাই শিক্ষার্থীগণের নিকট আবেদন করিতেছি যেন তাহারা সরকারকে সহায়তা করে যাহাতে সরকার জিপিএ ৫ এবং অকৃতকার্য এর মধ্যবর্তী যে সকল ফলাফল আছে তাহাকে বাতিল বলিয়া ঘোষনা করিতে পারে। কেননা ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে এখন তাহারাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করিতেছে।

তথ্যঃ এসএসসির ফল: সাফল্যের আনন্দ দেশজুড়ে

Bookmark and Share

Advertisements