সম্প্রতি বাংলাদেশে সামাজিক যোগাযোগের অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি বুনটস্থান; ‘ফেসবুক’ বন্ধ করিয়া দেওয়া হইয়াছে। জনমনে ইহা লইয়া যারপরনাই ক্ষোভ পরিলক্ষিত হইতেছে। অধিকাংশই (সকলেই নয়) বলিতেছেন ইহা কিরূপ কর্ম হইল। সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়িবার প্রতিশ্রুতি দিয়া ক্ষমতারোহন করিয়া এখন ডিজিটাল যোগাযোগ মাধ্যমকেই রুদ্ধ করিয়া দিতেছে! সরকারের ‘ফেসবুক’ বন্ধের এই সিদ্ধান্তে বাংলাদশের face এ যে কালিমা পড়িল এবং যে সকল ফ্যাসাদ হইল তাহা সরকার কিরূপে মোচন করিবে? ইহা তো আরেকটি মৌলবাদী দেশের (নাম উল্লেখ করিতে চাহিতেছি না) ন্যায় হইয়া গেল। ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু আমার মনে হয় জনগন আরো একটি বার সরকারকে ভুল বুঝিয়াছেন। সরকার সর্বদাই দেখিয়া আসিতেছে কিসে জনগনের মঙ্গল হয়, ডিজিটাল বাংলাদেশ এর স্বপ্ন সহজে বাস্তবায়ন করা যায়। সে লক্ষ্যে যে সরকার এক কালজয়ী সিদ্ধান্ত গ্রহন করিয়াছে তাহা আমি আমার পূর্বের রচনাতে উল্লেখ করিয়াছি। অত্র রচনাতেও ডিজিটাল বাংলাদেশ এর সেই স্বপ্ন নিয়ে আরো কিছুটা আলোচনা করার প্রয়োজনীয়তা দেখিতেছি।

গত ১৫ই জৈষ্ঠ্য (২৯ মে) যখন ‘ফেসবুক’ বন্ধ করিয়া দেওয়া হয় তখন আমি রেলগাড়িতে অবস্থান করিতেছিলাম। স্বাভাবিকভাবেই আমি ‘ফেসবুক’ বন্ধের ব্যাপারে অবগত ছিলাম না। কিন্তু কিছুক্ষন এর মাঝেই আমি আমার ভ্রাম্যমান দূরালাপনীতে বেশ কয়েকটি ক্ষুদে বার্তা পেয়ে গেলাম, বাংলাদেশে ‘ফেসবুক’ বন্ধ করিয়া দেওয়া হইয়াছে এই বিষয়ে। অনেকেই আমার সহিত যোগাযোগ করিয়া জিজ্ঞাসা করিল, এখন কি হইবে? আমি তখন মুচকি হাসি দিয়া বলিয়াছিলাম, ইহা কোন ঘটনা হইল। সরকার চলে ডালে ডালে, আমি চলি পাতায় পাতায়। ‘ফেসবুক’ এ প্রবেশ করা তো কোন ব্যাপারই নয়। কিন্তু বাড়িতে আসিয়া আপন গণনাযন্ত্রের মাধ্যমে বিভিন্ন ছলচাতুরী করিয়া যখন ‘ফেসবুক’ এ প্রবেশ করিতে সক্ষম হইলাম তখনই আমি বুঝিতে পারিলাম কি ভুল উক্তিটাই না আমি করিয়াছিলাম! আসলে হইবে আমি চলি পাতায় পাতায় আর সরকার চলে শিরায় শিরায়। কেন? কারন ‘ফেসবুক’ এ প্রবেশ করিয়া দেখি আমার বেশ কিছু বন্ধু (যাহারা বাংলাদেশেই অবস্থান করিতেছে) সেখানে উপস্থিত। এর মাঝে সকলেই যে প্রযুক্তি বিষয়ে যথেষ্ঠ দক্ষ তাহা নয়। তাহলে? তখনই বুঝিতে পারিলাম আসলে সরকার কি করিতে চাহিতেছে। যদিও আমার অগ্রজ এক ভ্রাতা এই বিষয়ে সামান্য আভাষ দিয়াছেন ‘ফেসবুক’ এ, কিন্তু আমি এখানে তাহা কিঞ্চিত বিস্তারিত লিখিতেছি।

যখন অন্তর্জালে কোনকিছু আটকাইয়া দেওয়া হয় তখন তাহা ব্যাবহার করিতে চাহিলে bypass (বিকল্প পথ) করিতে হয়। এই বিকল্প পথের ব্যাপারটি কিঞ্চিত জটিল, বিশেষ করিয়া যাহাদের প্রযুক্তি জ্ঞান তুলনামূলক কম তাহাদের জন্য ইহা প্রায় অসাধ্য। এই কর্মে সবচেয়ে প্রচলিত ব্যাবস্থাটি হইতেছে, proxy ব্যাবহার করা। যাহাদের প্রযুক্তি জ্ঞান সীমিত তাহারা তো বটেই, যথেষ্ঠ প্রযুক্তি জ্ঞান সম্পন্ন অনেকেও এই বিষয়ে অবগত নন। কিন্তু একটি কথা, প্রয়োজন কোন আইন মানে না। জনগনও এখানে কোন আইনের তোয়াক্কা না করিয়া শিখিয়া লইয়াছে এই জটিল ব্যাপারগুলো। আর তাহার ফল; সকলেই ‘ফেসবুক’ ব্যাবহার করিতেছে, কিন্তু একটু ভিন্ন পন্থায়। ইহাতে বেশ কয়েকটি লাভ হইল; এক, যাহারা ‘ফেসবুক’ চিনিত না তাহারা চিনিয়া ফেলিল পত্রিকার সংবাদ এর সুবাদে, দুই, যাহারা ‘ফেসবুক’ ব্যাবহার করেন তাহারা নতুন একটি প্রাযুক্তিক বিষয় সম্পর্কে অবগত হইল, তিন, যাহারা proxy ব্যাবহার করিয়া ‘ফেসবুক’ এ প্রবেশ করিয়াছেন; তাহারা অন্য কোন দেশের ‘ফেসবুক’ এর মাধ্যমে প্রবেশ করিয়াছেন যাহাদের অনেকেরই প্রধান ভাষা ইংরেজী নয় (যেমন, জার্মানি, ফ্রান্স, ইউক্রেন)। সেই সুবাদে সেই দেশের ভাষা সম্পর্কেও খানিকটা জানা হইয়া গিয়ছে। আপাতত আমি এক ঢিলে তিন পক্ষী দেখিতেছি, কিন্তু আমার বিশ্বাস সরকার এক ঢিলে শতশত পক্ষী মারিয়াছে, যাহা আপন ক্ষুদ্র মস্তিষ্কে আসিতেছে না।

এখন পাঠক প্রশ্ন করিতে পারেন, তা সরকার যখন শিখাইতেই ইচ্ছুক তখন এইরূপে কেন? অন্যভাবে কি পারা যাইত না? এইখানে আমার একটি গদ্যের কথা মনে পড়িতেছে। ইহা হয়তো অনেকেই শুনিয়াছেন, তথাপিও বলিতেছি।

দুই ফাঁকিবাজ ভ্রাতাকে পড়াইবার দায়িত্ব লইয়াছেন এক শিক্ষক। তিনি বিভিন্ন প্রকারে চেষ্টা করিয়া যখন কোনভাবেই তাহাদের পাঠদান করিতে সক্ষম হইলেন না তখন তিনি বুদ্ধি করিয়া ভ্রাতাদ্বয়কে ফুলবাগানে বেড়াইতে লইয়া গেলেন। খানিক হাওয়া খাইবার পর তিনি জ্যেষ্ঠ ভ্রাতাকে বলিলেন, ওই বৃক্ষটিতে কইটি ফুল আছে কহিতে পারো? জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা উত্তরে কহিল, তিনটি। তখন শিক্ষক তাহাকে বলিলেন, বৃক্ষটিতে যদি আরো দুইটি ফুল ফুটে তাহা হইলে কয়টি হইবে কহিতে পারো? সাথে সাথে কনিষ্ঠ ভ্রাতা চিৎকার দিয়া উঠিল, দাদা উত্তর দিস্‌ না কিন্তু। মাস্টারমশাই আমাদিগকে গণিত শিখাইবার চেষ্টা করিতেছেন।

আমাদিগের অবস্থাও হইয়াছে ওই ফাঁকিবাজ ভ্রাতাদ্বয়ের ন্যায়। আমরা কোন ক্রমেই আর শিক্ষা গ্রহন করিতে চাহি না। তাই সরকার এই প্রচেষ্টা লইয়াছিল বলিয়া আমার বিশ্বাস। সৌভাগ্যক্রমে জনগন এই ফাঁকিটি ধরিতে না পারিয়া শিক্ষাগ্রহন করিয়া ফেলিয়াছে। আহা! জনগনকে লইয়া এতো চিন্তা করে এমন সরকার পৃথিবীর আর কোন দেশে খুজিয়া পাওয়া যাইবে? ইহা ভাবিয়াই আনন্দে আর গর্বে বুক একশ হাত ফুলিয়া উঠিতেছে। সাধেই কি আর কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য বলিয়াছিলেন,

“সাবাস্‌ বাংলাদেশ; পৃথিবী অবাক তাকিয়ে রয়

জ্বলে পুড়ে মরে ছারখার; তবু মাথা নোয়াবার নয়।”


Bookmark and Share

Advertisements